knowledge-update-10th
Knowledge Udpate (জ্ঞান-বিজ্ঞান)

জ্ঞান – বিজ্ঞান আপডেট | 10th Edition

জ্ঞান-বিজ্ঞান আপডেট | 10th Edition (29/03/21 – 04/04/21)


আধুনিক সময়ে খবরের অধিকাংশ স্থান জুড়ে থাকে দেশ – রাজনীতি, খুন – অপরাধ ইত্যাদি সংক্রান্ত খবর।

এই তথাকথিত খবরের গণ্ডি পেরিয়ে ভিন্ন ধর্মী কিছু ব্যাতিক্রমী খবরের আপডেট নিয়ে আমাদের সাপ্তাহিক বিভাগ, জ্ঞান – বিজ্ঞান আপডেট। আমাদের বিশ্বাস আট থেকে আশি; সমস্ত পাঠকের পাঠযোগ্য হবে এই বিভাগ। আজ রইল দশম সংস্করণ।

ক। প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান

অচেনা ও অপ্রতিরোধ্য ব্যাকটেরিয়ায় আশঙ্কা মহামারীর

একেই তো কোভিড-কে রুখতে নাজেহাল গোটা পৃথিবী। তার উপর নতুন অনেকগুলি অপ্রতিরোধ্য ব্যাকটেরিয়া সমষ্টির খোঁজ মিলল প্রশান্ত মহাসাগরের অনেক গভীরে, নিরক্ষীয় রেখার নীচে। এই ব্যাকটেরিয়াগুলি একেবারেই নতুন এবং এদের সাথে মানুষের শরীর বা কোন জলজ স্তন্যপায়ীর শরীরও একেবারেই পরিচিতি নেই। তাই বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা এই যে এর আগামী দিনে নতুন কোন অতিমারীর সৃষ্টি হতে পারে।

খবরটি সাম্প্রতিক ভাবে প্রকাশিত হয়েছে ‘সায়েন্স ইমিউনলজি’ নামের বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকায়।

Source – anandabazar.com

মিল্কিওয়েতে নিরাপদ জীবনের অনুসন্ধানে বিজ্ঞানীরা

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা মিল্কিওয়ে পর্যবেক্ষণ করে সুস্থ স্বাভাবিক ভাবে বেঁচে থাকার সবথেকে নিরাপদ জায়গাগুলি আবিষ্কারে সক্ষম হয়েছেন। সবথেকে নিরাপদ স্থানটি বিজ্ঞানীদের মতে মিল্কিওয়ের কেন্দ্রবিন্দু থেকে প্রায় 26,000 আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। এই নতুন বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধানগুলি করেছেন একদল ইতালীয়ান বিজ্ঞানীরা যাঁদের বৈজ্ঞানিক গবেষণায় ধরা পড়েছে বেশ কিছু মহাজাগতিক বিস্ফোরণের তত্ত্ব এবং এই বিস্ফোরণের সঠিক জায়গাগুলিও তাঁরা নিশ্চিত করেছেন। এই বিস্ফোরণের ফলে সুপারনোভা এবং গামা রে ফেটে গিয়ে কিছু উচ্চশক্তির কণা এবং রেডিয়েশান বিচ্ছুরিত করে যা DNA -কে বিনষ্ট করে ও জীবনকে ধংস করে।

সুতরাং মিল্কিওয়ের যে অঞ্চলগুলিতে বিস্ফোরণ কম হয় সেই অঞ্চলগুলিতেই জীবন নিরাপদভাবে বেড়ে উঠতে সক্ষম। ইতালির Insubria University -র জ্যোতির্বিজ্ঞানী Riccardo Spinelli -ও তাঁর বক্তব্যে এই মহাজাগতিক বিপর্যয়গুলির কথা উল্লেখ করেছেন।

Sourcelivescience.com

খ) প্রকৃতি ও পরিবেশ

বিলুপ্তির পথে Tapanuli Orangutans

Tapanuli Orangutans- এই বিশেষ ধরনের প্রজাতিটি পৃথিবী থেকে প্রায় বিলুপ্তির পথে, সাম্প্রতিক বৈজ্ঞানিক গবেষণা অন্তত তাই বলছে। খবরটি সম্প্রতি প্রকাশিত হয় ‘The Hill’ নামের পত্রিকায়। ইন্দোনেশিয়ার North Sumantra -তে Batang Toru পর্বতে তাদের সংখ্যা পূর্বের তুলনায় অনেকটাই কমে গেছে। সর্বমোট মাত্র 800 -টির মত orangutan -এর অস্ত্বিত্ব রয়েছে এই Batang Toru -তে যা এককথায় আগের তুলনায় যথেষ্টই কম এবং বিলুপ্তির প্রায় শেষ পর্যায়ে বলা যায়। এদের সংরক্ষণে যথেষ্ট সতর্কতা না দেখালে, বন্দী করলে বা মেরে ফেললে এই প্রাচীন বিশেষ প্রজাতিটিকে টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না এমনই মতামত বিশেষজ্ঞ Erik Meijaard -এর।

Source – livescience.com

সাঁতারের নতুন কায়দায় বিস্মিত বিজ্ঞানীমহল

জলজ প্রাণীদের মধ্যে হাঙ্গর, কচ্ছপ, সীল মাছ ও পেঙ্গুইনদের সাঁতারের একটি আশ্চর্য কায়দা পরিলক্ষিত হয়েছে। বৈজ্ঞানিকরা লক্ষ্য করে দেখেছেন এই সামুদ্রিক প্রাণীগুলি জলের মধ্যে একনাগাড়ে বৃত্তাকারে সাঁতার কাটে। এর প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে বিজ্ঞানীরা চৌম্বক ক্ষেত্রের সাথে প্রাণীদের এই সাঁতার রহস্যের কোন যোগাযোগের সূত্র রয়েছে বলে অনুমান করছেন। গবেষক Tomoko Narazaki তাঁর নিজস্ব পরীক্ষা নিরীক্ষার মধ্যে দিয়েও এই বৃত্তাকার সাঁতারের গতি পর্যবেক্ষণ করেছেন, এমনকি তাদের গন্তব্য নির্দিষ্ট করা থাকলেও তারা একটি বৃত্তাকার চক্রে সাঁতার কেটেই সেই গন্তব্যে পৌঁছয়।

Source – livescience.com

কফির উপকারিতা প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার ক্ষেত্রেও 

ক্যাফেইন হল একটি তিক্ত স্বাদের সাদা স্ফটিক যা পিউরিন মিথাইলজ্যান্থিন এল্কালয়েড নামে রাসায়নিকভাবে পরিচিত। সমীক্ষায় দেখা গেছে কফির ভেতরে থাকা এই ক্যাফেইন নানাভাবে গাছপালা বা বনজঙ্গল কে সুস্থভাবে এবং তাড়াতাড়ি বেড়ে উঠতে সাহায্য করে। ঘটনাটি অবাক করার মত হলেও সত্যি। কোস্টারিকার একটি অঞ্চলে এটি পরীক্ষিত সত্য যে কফি চাষের ফলে সেই অঞ্চলের জমি বেশ কিছুটা হলেও উর্বর হতে দেখা গেছে। এমনকি প্রায় বিনষ্ট হয়ে যাওয়া গাছপালাও কফির সংস্পর্শে এলে নতুন ভাবে প্রাণ ফিরে পায় । যে জমিতে কফির সমস্ত বর্জ্য পদার্থগুলি ফেলা হয়েছিল সেই জমির গাছপালাগুলি অন্য জমিটির তুলনায় অনেক বেশী স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে বেড়ে উঠতে দেখা গেছে।

Source – nationalgeographic.com

গ) স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা

চিনের উহান মার্কেট [সৌজন্যে – fortune.com]

করোনার উৎস সন্ধানে

করোনা ভাইরাসের সঠিক উৎস সম্পর্কে গবেষণা চলছে বেশ কিছু দিন ধরে। এরমধ্যে যদিও কিছু অজানা তথ্য আবিষ্কারে সফল বিজ্ঞানীরা। সদ্য প্রকাশিত WHO -এর রিপোর্টে জানা গেছে Covid 19 এর ভাইরাস SARS-CoV-2 সম্ভবত প্রাণীদের দেহ থেকেই মানুষের দেহে সংক্রামিত হয়। প্রাথমিকভাবে হয়তো ভাইরাসটি বাদুড় বা প্যাঙ্গলিন জাতীয় কোন প্রাণী থেকে মানবদেহে সংক্রামিত হয়েছিল। তবে সর্বপ্রথম উৎস যে চীনা কোন পরীক্ষাগার থেকে সৃষ্টি হয়নি সে ব্যাপারেও অনেকটাই নিশ্চিত বিজ্ঞানীরা। WHO এর ডিরেক্টর জেনারেল Tedros Adhanom Ghebreyesus এই প্রসঙ্গে যে গবেষণা এখনও অব্যাহত সে বিষয়ে সাধারণ মানুষকে আশ্বস্ত করেছেন।

Source – nationalgeographic.com

jump-magazine-subscription

কোভিডের ভয়াবহ রূপ

ভারতবর্ষে ধীরে ধীরে কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ছে। বিগত কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত বাড়ছে সঙ্ক্রমণ। তবে, মূলত মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, ছত্তীসগঢ়, দিল্লি, তামিলনাড়ু, উত্তরপ্রদেশ, পঞ্জাব এবং মধ্যপ্রদেশে— এই ৮টি রাজ্যেই করোনার হার উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। মানুষের অসতর্কতা ও অশিক্ষা এবং সেইসঙ্গে প্রয়োজনীয় নিয়মভঙ্গের ফলেই আবার হয়তো এক ভয়ঙ্কর দুর্দিনের সম্মুখীন হতে চলেছি আমরা।

Source – hindustantimes.com

ঘ) ইতিহাস ও সংস্কৃতি

Cephalopod [চিত্র সৌজন্যে – ocean.si.edu]

প্রায় 500 মিলিয়ন বছরের পুরনো  জীবাশ্ম আবিষ্কার 

প্রাক ক্যাম্ব্রিয়ান যুগের কিছু বহু পুরনো সামুদ্রিক প্রাণীর ফসিল যেমন,  octopuses, squid, cuttlefish এবং nautiluses এর জীবাশ্ম আবিষ্কার হয়েছে যেগুলি প্রায় 522 মিলিয়ন বছরের পুরনো। এই আবিষ্কারটি হয়েছে কানাডার  Newfoundland এর Avalon Peninsula তে। এখনও পর্যন্ত সবথেকে প্রাচীন সেফালপডটি (cephalopod) Plectronoceras cambria নামে পরিচিত ছিল। গবেষণাকারীরা বলেন এটি আবিষ্কারের পরেও প্রায় 30 মিলিয়ন বছর পর্যন্ত বেঁচে ছিল

Source – nationalgeographic.com

আমেরিকার অগ্নিকন্যা Ida

ঘটনাটি 1869 সালের মার্চ মাসের ঘটনা। জলজ যাত্রাপথে একটি বিপর্যয় ঘটে Newport Harbor- এর Rhode Island -এ। দুইজন সৈন্য এই নৌকায় আটকে ছিল। কিন্তু মাত্র 27 বছরের Idawalley Zoradia Lewis এঁদের উদ্ধারকার্যে এগিয়ে আসেন ও সফল হয়। ইনিই ছিলেন ‘Ida’ যিনি তাঁর 54 বছরের কর্মজীবনে 25 জনেরও বেশী মানুষের জীবনরক্ষা করতে সফল হয়েছিলেন। Ida ছিলেন সেখানকার Lighthouse Keeper। সম্প্রতি এনাকে অন্য সব সম্মানের সাথে আমেরিকার সবথেকে সাহসী কন্যার সম্মান দেওয়া হয়। 

Source – nationalgeographic.com

ঙ) খেলা ও ক্রীড়া

[চিত্রসৌজন্যে – news18.com]

করোনা আক্রান্ত মহিলা ক্রিকেটার হরমনপ্রীত কৌর

শরীর সামান্য খারাপ হয়েছিল এবং চারদিন ধরে হাল্কা জ্বরে ভুগছিলেন হরমনপ্রীত কৌর। তিনি নিজেও হয়তো ভাবেননি। সামান্য কিছু উপসর্গ দেখা দেওয়ায় তাঁর করোনা টেস্ট করানো হয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে রিপোর্ট পজিটিভ আসায় আপাতত সেলফ আইসোলেশান এই আছেন তিনি। চোট থাকার কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে T20 সিরিজে খেলতে পারেননি তিনি। এমনিতেই করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ বাড়ছে গোটা ভারতে। কৌর ছাড়াও সচিন তেন্ডুলকর, ইরফান ও ইউসুফ পাঠান- ও করোনার কবলে পড়েন এর আগে। 

Source – bengali.abplive.com

এই লেখাটি ভালো ভালো লাগলে সবার সাথে শেয়ার করার অনুরোধ রইল।



এছাড়া,পড়াশোনা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ের আলোচনায় সরাসরি অংশগ্রহন করতে যুক্ত হতে পারেন ‘লেখা-পড়া-শোনা’ ফেসবুক গ্রূপে। এই গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন এখানে।

Leave a Reply