use-of-electricity
Madhyamik

গৃহস্থালিতে বিদ্যুতের ব্যবহার

শ্রেণিঃ দশম | বিষয়: ভৌত বিজ্ঞান । অধ্যায়: চলতড়িৎ


আজকের সময়ে বিদ্যুৎ ছাড়া আমরা প্রায় অচল।

নানান দৈনন্দিন যন্ত্রপাতি যেমন দূরদর্শন, রেফ্রিজারেটর, পাখা, বাল্ব, জলের পাম্প ইত্যাদি ছাড়া আমরা বেঁচে থাকার কথা ভাবতেই পারি না।

বিশেষ খেয়াল করলে দেখা যাবে, আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আমরা যে সকল বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করি তাদের প্রত্যেকের গায়েই কিছু সংখ্যা ও চিহ্ন লেখা থাকে। যেমন-

একটি LED আলোর গায়ে লেখা আছে 220v, 60w, প্রথমেই জানা দরকার এর অর্থ কি?

এর অর্থ হল আলোটিকে যদি 220 ভোল্ট মেইন লাইন (বা উৎস) এর সঙ্গে যুক্ত করা হয় তবে আলোটির উজ্জ্বল্য সর্বাধিক হবে এবং এই অবস্থায় বাল্বটির জন্য 60 জুল শক্তি প্রতি ঘণ্টায় ব্যয়িত হবে।

light_ 60W

এইরূপে আমরা বাল্ব, পাখা, টিউব, ফ্রিজ, টিভি ইত্যাদি যেসব বিভিন্ন যন্ত্র চালাই তার জন্য মোট বিদ্যুতের খরচ বা শক্তির খরচ আমরা হিসাব করতে পারি। এর জন্য নির্ধারিত একক হল B. O. T. যার পুর নাম হল Board of Trade Unit।

B O T in bengali

তাহলে, এই সম্পর্ক অনুসারে একটি 40 ওয়াটের বাল্ব যদি দিনে 10 ঘণ্টা জ্বলে তবে তার জন্য বিদ্যুৎ খরচ হবে \frac{40\times 10}{1000} = 0.4 BOT বা, 0.4 unit

এই ভাবে আমরা যতগুলি বৈদ্যুতিন যন্ত্র চলবে তাদের প্রত্যেকের জন্য কত ইউনিট বিদ্যুৎ পুড়বে তা হিসাব করতে পারি।


[আরো পড়ুন – চলতড়িতের প্রাথমিক ধারণা ও ওহমের সূত্র]

গৃহস্থালির বিদ্যুৎ সংযোগের ক্ষেত্রে সুরক্ষা সংক্রান্ত কিছু বিষয়

তড়িৎ শক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে যে বিপদের সম্ভবনা সবচেয়ে বেশি থাকে তা হল শর্ট সার্কিট (short circuit)। আমরা জানি যে গৃহস্থালীতে তড়িৎ সরবরাহকারী তড়িৎদ্বার গুলির মধ্যে ধনাত্মক তড়িৎদ্বার থেকে বিভিন্ন লোড বা রোধ হয়ে ঋণাত্মক তড়িৎদ্বারে সংযুক্তির মাধ্যমে বর্তনী সংগঠিত হয়।

কিন্তু কোন কারণে যদি লোড বা রোধ বিহীন ভাবে ধনাত্মক ও ঋণাত্মক তড়িৎদ্বার থেকে নির্গত তারের সংযুক্তি ঘটে তবে সমগ্র বিদ্যুৎ ঐ তারের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত হয়। এই  অবস্থাকেই ক্ষুদ্র বর্তনী বা short circuit বলে।

short_circuit

আমরা জানি, এই প্রকার পরিস্থিতিতে বর্তনীতে প্রচুর তাপ উৎপন্ন হয় যা থেকে অগ্নিকান্ডের সম্ভবনা থাকতে পারে। এই প্রকার বিপদের হাত থেকে বাঁচার জন্য বর্তনীর সঙ্গে শ্রেণী সমবায়ে ফিউজ তার যুক্ত করা থাকে।


[আরো পড়ুন – তড়িৎ প্রবাহের তাপীয় ফল সংক্রান্ত জুলের সুত্র]

ফিউজ (Fuse) কাকে বলে?

fuseholders

ফিউজ তার নির্মিত হয় 63% টিন এবং 37% লেড ধাতুর মিশ্রণে । তারটির প্রকৃতি এমন হয় যাতে তা স্বল্প তাপেই গলে যেতে পারে। এই কারণে সার্কিট অবস্থায় উৎপন্ন তাপে ফিউজ তার গলে গিয়ে বর্তনী সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়, ফলে বিপদের সম্ভবনা হ্রাস পায়।

subscribe-jump-magazine-india

তবে আজকাল ফিউজ তারের বদলে M. C. B (miniature circuit breaker)  ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

MCB

M.C.B একপ্রকার স্বয়ংক্রিয় সুইচ যা ফিউজ তারের মতই শ্রেণী সমবায়ে বর্তনীর সঙ্গে যুক্ত থাকে। তবে এতে সুবিধা হল ফিউজ তারের  মত গলে গিয়ে পুনরায় সংযুক্তির প্রয়োজন পড়ে না, ক্যাবল সুইচ অন অবস্থা ছাড়াই পূর্ণ বর্তনীতে ফিরে আসা যায়।

এই লেখাটি থেকে উপকৃত হলে সবার সাথে শেয়ার করতে ভুলো না।



এছাড়া,পড়াশোনা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ের আলোচনায় সরাসরি অংশগ্রহন করতে যুক্ত হতে পারেন ‘লেখা-পড়া-শোনা’ ফেসবুক গ্রূপে। এই গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন এখানে।

lekha-pora-shona-facebook-group

Dr. Mrinal Seal
ডঃ মৃণাল শীল সাঁতরাগাছি উচ্চ বিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যার একজন জনপ্রিয় শিক্ষক। পড়াশোনার পাশাপাশি ঘুরে বেড়াতে ও নানান ধরণের নতুন নতুন খাবার খেতেও পছন্দ করেন ডঃ শীল।

Leave a Reply