bapan-drobon-diffusion
WB-Class-9

ব্যাপন (Diffusion)

ভৌতবিজ্ঞান – নবম শ্রেনি – অধ্যায়: দ্রবণ (পঞ্চম পর্ব)


আগের চারটি পর্বে আমরা দ্রবণ অধ্যায় থেকে দ্রাব, দ্রাব্য, দ্রাবক ইত্যাদি নানান বিষয়ের ধারণা নিয়ে আলোচনা করেছি। এই পর্বে ব্যাপন অর্থাৎ Diffusion নিয়ে আলোচনা করবো।

কোনো দ্রাবকে, কোনো দ্রাবের দ্রব্যের অণু যোগ করলে সেটি ছড়িয়ে পড়তে চায়। এর কারণ দ্রবণে দ্রাবের গাঢ়ত্বের পরিমাণের অসাম্য। দ্রবণের কোনো অংশে দ্রাব কম থাকলে সেটি লঘু হয়ে পড়ে আর ওপর অংশ গাঢ় থেকে যায়। তখন লঘু অংশের দ্রাবের চাপ কম থাকে আর গাঢ় অংশে চাপ বেশি থাকে। তখন সেই গাঢ়তর অংশ থেকে দ্রাবের অণু লঘুতর অংশে ছড়িয়ে পড়ে। এই পদ্ধতিকে ব্যাপন বলে।

Diffusion
ব্যাপন প্রক্রিয়া [সৌজন্যে – wikipedia.org]
এক গ্লাস জলে এক ফোঁটা কালি ফেললে, জলের উপরিতলে যেখানে কালি যোগ করা হয়েছে, সেখানে কালির গাঢ়ত্ব বেশি থাকে। অপরদিকে বাকি অংশে কালি নেই, তাহলে কালির কণা দ্বারা চাপও শূন্য। তাই বেশি চাপযুক্ত উপরিতল থেকে কালি কম চাপযুক্ত অংশে ছড়িয়ে পড়ে। এবং গোটা দ্রবণটিই কালির বর্ণ ধারণ করে।JUMP whats-app subscrition

জল ভিন্ন অন্য দ্রাবক- ধ্রুবীয় ও অধ্রুবীয়

জল ছাড়াও আরো অনেক দ্রাবক আমরা ব্যবহার করি। যেমন, লাইকার অ্যামোনিয়া, ইথানল, অ্যাসিটোন, অ্যাসিটিক অ্যাসিড,  টলুইন, পেট্রল বেঞ্জিন ইত্যাদি। এদের আমরা দুই প্রকারে ভাগ করতে পারি।

ধ্রুবীয় দ্রাবক: লাইকার অ্যামোনিয়া, ইথানল, অ্যাসিটোন, অ্যাসিটিক অ্যাসিড এরা জলের মতোই ধ্রুবীয় হয়, কিন্তু এদের দ্রাব্যতার ধরণ আলাদা। লাইকার অ্যামোনিয়ার ধ্রুবীয়তা জলের থেকে কম, কিন্তু উদ্বায়ী বলে সহজে পৃথকীকরণ সম্ভব।  ইথানল, অ্যাসিটোন, অ্যাসিটিক অ্যাসিড জৈব যৌগ। তার ফলে  জৈবযৌগসমূহ এগুলিতে দ্রবীভূত হয়। ধ্রুবীয় জৈবযৌগের দ্রাব্যতাও জলের তুলনায় এই দ্রাবকগুলিতেই বেশি দেখা যায়।



অধ্রুবীয় দ্রাবক: অপরদিকে টলুইন, পেট্রল, বেঞ্জিন ইত্যাদি দ্রাবক অধ্রুবীয় যৌগকে দ্রবীভূত করতে সাহায্য করে। কারণ এই যৌগগুলিতে ধ্রুবীয়তা বর্তমান নয়। আর সমধর্মী পদার্থ সমধর্মী দ্রাবকে দ্রবীভূত হয়। তাই এরা জৈব যৌগকে দ্রবীভূত করতে সক্ষম। ওষুধ, প্রসাধনী, রং, বার্নিশ প্রভৃতি দ্রবীভূত করতে জৈব দ্রাবকের প্রয়োজন হয়।


[আরো পড়ুন – দ্রবণের প্রাক্‌কথন]

কিন্তু এরা শুধুমাত্র জৈব দ্রাবক নয়, উদ্বায়ীও। তার ফলে এরা বায়ুতে মিশে গিয়ে আমাদের শ্বাসযন্ত্রে প্রবেশ করে আমাদের ফুসফুস, স্নায়ু ও রক্তের ক্ষতি করে। তাই এগুলির ব্যবহারে আমাদের সতর্কতা অবলম্বন করা উচিৎ।

এই লেখাটি থেকে উপকৃত হলে সবার সাথে শেয়ার করতে ভুলো না।



এছাড়া,পড়াশোনা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ের আলোচনায় সরাসরি অংশগ্রহন করতে যুক্ত হতে পারেন ‘লেখা-পড়া-শোনা’ ফেসবুক গ্রূপে। এই গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন এখানে।

lekha-pora-shona-facebook-group

Leave a Reply