WB-Class-9

ভালো রাশির গোড়ার কথা।



অধ্যায়: পরিমান ও একক

আমাদের চারিপাশে সংখ্যার সমাহার। আমরা বিভিন্ন সংখ্যা দিয়ে ঘিরে রয়েছি। তবু আমরা সেই সব সংখ্যা দেখতে পাই না কেন? কারণ সেই সব সংখ্যা ছদ্মবেশে রয়েছে। রাশির ছদ্মবেশে!

দেখা যাক কতগুলি ছদ্মবেশ তুমি ধরতে পারো? বলো দেখি এরা কোন রাশি?

ক) ৫ কিগ্রা,  খ) ১৫২.৩৪ মি,  গ) ৪৩৪৯১২০ ঘ, ঘ)০.০০০৩৫২ ডেকালি।

যখনই আমাদের মন প্রশ্ন করে “কতো?” যে উত্তরটা আমাদের মুখ থেকে বেরোয় সেটাই হলো রাশি। যেমন কতদূর হাঁটতে হবে? ১০ কিলোমিটার। কতখানি চাল আছে? ২৫ কিলোগ্রাম। কতটা ওষুধ খাবো? ৫ মিলিলিটার। ইত্যাদি। রাশির দুটি অংশ। একটিকে বলা হয় সংখ্যা, অপরটি হলো একক।

JUMP whats-app subscrition

[আরো পড়ুন – ভৌত বিজ্ঞানের দ্বিতীয় অধ্যায়; পরমাণুর গঠন]

পছন্দসই তিনটি সংখ্যা বাছো আর তাতে পছন্দসই পাঁচটি একক লাগাও। বলতো এগুলো কোন রাশি হলো? আর এই রাশিগুলো কোথায় আমরা ব্যবহার করি?

এই একক হলো রাশিকে চেনানোর উপায়। একক হলো লেজ যা দেখে আমরা রাশি নামক জন্তুটিকে ধরতে পারি। যেমন ভরের জন্য কিলোগ্রাম, দৈর্ঘ্যের জন্য কিলোমিটার, আয়তনের জন্য মিলিলিটার, ইত্যাদি। এখানে কিলো, মিলি প্রভৃতি শব্দ হলো অনুএকক, যা মূল একককে বড়ো বা ছোটো করে। যেমন কিলো শব্দের অর্থই হলো হাজার, আবার মিলি শব্দের অর্থ ১/১০০০। অর্থাৎ কিলো-মিটার বলা মানেই হাজার মিটার বলা।  এরকম ভাবে আমরা বিভিন্ন একককে প্রয়োজন অনুসারে ছোটো বড়ো করতে পারি। কিন্তু এইরকম একটা রাশিকে ছোটো বড়ো করার প্রয়োজন হয় কেন? কারণ তা না করলে দেহটা, মানে সংখ্যাটা এতো বিদঘুটে আসবে যে আমরা কিছুই বুঝতে পারবো না, আর দশমিকের পর কতগুলি শূন্য বা কোনো সংখ্যার পর কতগুলি শূন্য বসবে সেই নিয়ে সন্দেহ থেকে যাবে।

[আরও পড়ুন – বাংলা; কলিঙ্গ দেশে ঝড়বৃষ্টি]

  1. বলতো ০.০০০০০০০৩৪২ কিলোমিটার মানে কত মিলিমিটার?
  2. বা, ৩৪২৮৯৪০০০০০০০০০০০ মাইক্রোগ্রাম মানে কত কিলোগ্রাম?

একটা উদাহরণ দেখা যাক, পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব ১৪৯০০০০০০০০০ মিটার। একবার দেখে বলোতো মোট কতগুলো শূন্য আছে? বোঝা যাচ্ছে? আবার একটি লাল বর্ণের আলোর তরঙ্গ এক লাফে ০.০০০০০০৬৮০ মিটার যেতে পারে। মনে রাখোতো কতগুলো শূন্য? কিছু মনে থাকছে? কিন্তু ১৮০০০০০০০০০ মিটার কে যদি আমরা এক আলোক মিনিট (এক মিনিটে আলো যতদূর যায়) বলি, তবে পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব ৮.২৭ আলোক মিনিট। আবার ০.০০০০০০০০১ মিটার কে যদি আমরা এক ন্যানোমিটার ধরি তবে বলতে পারি আলোক তরঙ্গ এক লাফে ৬৮০ ন্যানোমিটার যাচ্ছে।

বলতে পারো?

  1. আলোর বেগ ৩ লক্ষ কিলোমিটার প্রতি সেকেন্ড হলে ৩.২ আলোকবর্ষ মানে কত কিলোমিটার?
  2. বেগুনি আলো প্রতি লাফে ৪০০ ন্যানোমিটার গেলে ওই দূরত্ব যেতে মোট কতবার লাফাবে?

তোমার উত্তর কমেন্ট বক্সে লেখ।

এই লেখাটি থেকে উপকৃত হলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলো না।

এছাড়া,পড়াশোনা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ের যে কোনো প্রশ্ন সরাসরি আমাদের করতে পারো ‘লেখা-পড়া-শোনা’ ফেসবুক গ্রূপে। এই গ্ৰুপে গিয়ে প্রশ্ন পাঠালে, আমাদের বিশেষজ্ঞরা পরবর্তী ২৪ ঘন্টার মধ্যে তার উত্তর দেবেন। গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন এখানে।



One Reply to “ভালো রাশির গোড়ার কথা।

Leave a Reply