forashi-biplpbe-darshonikder-vumika
প্রশ্ন-উত্তর

ফরাসী বিপ্লবে দার্শনিকদের ভূমিকা

ইতিহাসনবম শ্রেণি – ফরাসী বিপ্লব


সামাজিক পটপরিবর্তনে চিন্তাবিদদের সর্বদাই একটা শক্তিশালী ভুমিকা থাকে, ফরাসী বিপ্লবও এই নিয়মের অন্যথা ছিল না।

সপ্তদশ শতকের শুরু থেকেই ফ্রান্সে দার্শনিক ও লেখকরা সচেষ্ট হয়ে ওঠেন, এরা মূলত ভ্রান্ত সমাজনীতি, ধর্মীয় গোঁড়ামি, দৈব রাজতন্ত্র ও ব্যাক্তিস্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে আঘাত করেন। এদের মধ্যে কয়েকজন হলেন মন্তেস্কু, রুশো এবং ভলতেয়ার।


[আরো পড়ুন – ফরাসী বিপ্লব – প্রথম পর্ব]

নিচে এই দার্শনিকদের সম্পর্কে দু চার কথা দেওয়া হল –

মন্তেস্কু (Montesquieu) । ১৬৮৯ – ১৭৫৫

ফরাসী দার্শনিকদের মধ্যে সর্বাপেক্ষা খ্যাতিমান ছিলেন মন্তেস্কু।

montesku-history-class-9
মন্তেস্কু এবং তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ ‘দি স্পিরিট অফ লজ্’

ক) তিনি তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ  “ দি স্পিরিট অফ লজ্” গ্রন্থে ফরাসী রাজাদের ঐশ্বরিক অধিকার তত্ত্বের তীব্র সমালোচনা করেন। এই বইটি এত জনপ্রিয় হয়েছিল  যে ১৮ মাসে এর ২২টি সংস্করণ শেষ হয়ে যায়।

খ)   ক্ষমতা বিভাজনকে বিশ্লেষন করে তিনি বলেছিলেন যে ব্যক্তি স্বাধীনতা সংরক্ষনের জন্য শাসন ব্যবস্থায় বিচার বিভাগ, আইন প্রণয়ন এবং কার্যনির্বাহী বিভাগকে পৃথক করতে না পারলে স্বাধীনতাকে সুনিশ্চিত করা যাবে না। তিনি ধন বন্টন ও ভোটাধিকারের কথা বলেন।

গ) তিনি তাঁর বই “ দি পারসিয়ান লেটার” এ ফ্রান্সে প্রচলিত সমাজ  কাঠামোর দোষ ত্রুটির প্রতি বিদ্রুপ করে, এই প্রচলিত কাঠামোর  বিরুদ্ধে জনগনকে বিপ্লবের পথে হাঁটতে প্রেরণা দিয়েছিলেন।

ঘ) ইংলন্ডের নিয়মতান্ত্রিক রাজতন্ত্রের সাফল্য এবং আমেরিকার স্বাধীনতা লাভের প্রভাবে প্রভাবিত ফরাসী জাতির মধ্যে মন্তেস্কুর নিয়ম তান্ত্রিক রাজতন্ত্র ও  ব্যক্তি স্বাধীনতার প্রস্তাব এক উন্মাদনার সৃষ্টি করেছিলো।

JUMP whats-app subscrition

ভলতেয়ার (Voltaire) । ১৬৯৪ – ১৭৭৮

ঐতিহাসিক রাইকারের মতে ফরাসী দার্শনিকদের মধ্যে সর্বাপেক্ষা দীপ্তমান ছিলেন  ভলতেয়ার। দার্শনিক, সাহিত্যিক ও ঐতিহাসিক ভলতেয়ার তাঁর জীবিত কালে ২০,০০০ পত্রাবলী ও ২০০০ এর উপর বই লিখেছিলেন। তাঁর লেখাগুলিতে ধর্মীয় গোঁড়ামি বাতিল করে ধর্মীয় ও ব্যক্তি স্বাধীনতার কথা বার বার লক্ষ্য করা যায়।

Voltaire
ভলতেয়ার ও তাঁর রচিত ‘ইংরেজ সম্পর্কে পত্রাবলী’

ক) তাঁর আক্রমণের প্রধান লক্ষ্য ছিল চার্চ এবং ধর্মের সঙ্গে যুক্ত অন্ধবিশ্বাস ও কুসংস্কার। তাঁর মতে গির্জা হল প্রগতি ও শিল্প বিরোধী। তিনি  গির্জাকে ‘বিশেষ অধিকার প্রাপ্ত উৎপাত’ বলে উল্লেখ করেন।

খ) প্রত্যক্ষ রাজনীতি ও সাম্যবাদে আস্থাহীন ভলতেয়ার শাসন তান্ত্রিক সংস্কার, ব্যক্তি স্বাধীনতা, প্রজা কল্যাণ, নিয়মতান্ত্রিক রাজতন্ত্রের সমর্থন করে তিনি ‘ কাদিদ’ ও ‘লেতর ফিলোজফিক’ নামে দুটি গ্রন্থ লিখেছিলেন।

গ)  ভলতেয়ারই সম্ভবত একমাত্র ব্যক্তি যিনি ফ্রান্সে বিপ্লবের ভবিষ্যত বানী করে গিয়ে ছিলেন।

ঘ) তাঁর অন্যতম উল্লেখযোগ্য রচনা ‘ ইংরেজ সম্পর্কে পত্রাবলী’।

bastil
রাজদ্রহিতার জন্য ১৭১৭ সালে এক বছর তাকে বাস্তিল দুর্গে কারারুদ্ধ রাখা হয়।

রুশো (Jean-Jacques Rousseau) । ১৭১২ – ১৭৭৮

rusho
রুশো ও তাঁর বিখ্যাত রচনা ‘Origin of Equality’

রুশো যে শুধুমাত্র একজন দার্শনিক ছিলেন তাই নয়, তিনি একজন গীতিকার, সাহিত্যিক, শিল্পী ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ছিলেন। তাঁর কাজ জ্যাকোবিনদের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। ১৭৯৪ সালে রুশোকে ফ্রান্সের জাতীয় নায়কদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

ক) ‘ঝড়ের পাখি’ ও ‘ফরাসী বিপ্লবের জনক’ নামে পরিচিত জেন জেকুইস রুশো ছিলেন জনপ্রিয়তম দার্শনিক ও রাষ্ট্র বিজ্ঞানী।

খ) তাঁর ‘ অসাম্যের সূত্রপাত’ (Origin of Equality) গ্রন্থে তিনি লিখেছেন “ মানুষ স্বাধীনতা সত্তা নিয়ে জন্মায়, কিন্তু সর্বত্রই সে শৃংখলে আবদ্ধ” (Man is born free, but everywhere he is in chains.

গ) তিনি সামাজিক বৈষম্য ও শ্রেণী শোষনহীন সুস্থ, সুন্দর সমাজ গঠনের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন।


আমাদের ফেসবুক পেজ লাইক করার অনুরোধ রইল! 🙂


ফরাসী বিপ্লবে দার্শনিকদের প্রভাব

ঐতিহাসিকদের মধ্যে ফরাসী বিপ্লবে দার্শনিকদের প্রভাব সম্পর্কে বিবাদ আছে।

ঐতিহাসিকদের একদল, যেমন Morse Stephens মনে করেন যে “ফরাসী দার্শনিকদের দার্শনিক তত্ত্ব ফরাসী বিপ্লবের কারণ হিসেবে মোটেই বিবেচ্য নয়”। আবার, ঐতিহাসিক Taine এর মতে, “ফরাসী বিপ্লবের উৎস খুঁজতে হবে ফরাসী দার্শনিকদের রচনায়।”

    • ফরাসী দার্শনিকগণ সরাসরি বিপ্লবের সমর্থনে তাদের মত ব্যক্ত করেন নি, এছাড়া তাদের মধ্যে আদর্শগত পার্থক্যও ছিল। দার্শনিকদের রচনার সঙ্গে সাধারণ মানুষের সরাসরি পরিচয় না থাকলেও তাদের মূল বক্তব্য সংবাদপত্র ও সাময়িক পত্র পত্রকাদির মাধ্যমে পৌছে যেত জনগনের কাছে । ১৭৭৭ খ্রিঃ ফ্রান্সে প্রকাশিত পত্র পত্রিকার সংখ্যা ৩৫টি হলেও বিপ্লবের সময় ১৭৮৯ খ্রিঃ সেই সংখ্যা বেড়ে হয় ১৬৯।
    • প্যারিসের সালো ও রেস্তোরা গুলিতে দার্শনিক মতামত নিয়ে তর্ক চলার ফলে ঐ খানে আসা মানুষ জন দার্শনিক মতামত সম্বন্ধে জানতে পারতেন। রাজনৈতিক ক্লাবগুলিতে শিক্ষিত বুর্জোয়া নেতৃত্বের সস্পর্শে এসে সাধারণ জনতাও দার্শনিকদের নতুন ধারণার সঙ্গে পরিচিত হয়ে ছিল।   
    • দার্শনিকদের চিন্তাধারা ফরাসীদের মানসিক বিকাশে সাহায্য করেছিল।
    • সাইমন স্যামা তাঁর ‘দ্য সিটিজেন’ গ্রন্থে বলেন যে, গ্ণসংগীত, কাহিনি ও নাটক, ব্যাঙ্গ চিত্র প্রভৃতি মাধ্যমে সাধারণ মানুষের চেতনার পরিবর্তন ঘটে।

এই লেখাটি থেকে উপকৃত হলে সবার সাথে শেয়ার করতে ভুলো না।



এছাড়া,পড়াশোনা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ের আলোচনায় সরাসরি অংশগ্রহন করতে যুক্ত হতে পারেন ‘লেখা-পড়া-শোনা’ ফেসবুক গ্রূপে। এই গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন এখানে।

lekha-pora-shona-facebook-group

Leave a Reply