osukhi-ekjon
Madhyamik

অসুখী একজন (পাবলো নেরুদা )

বাংলা দশম শ্রেনি – অসুখী একজন (পদ্য)


কবি পরিচিত

পাবলো নেরুদা একজন বিশ্বখ্যাত ‘চিলিয়ান’ কবি ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। দক্ষিন আমেরিকার ‘চিলি’ দেশের নাগরিক পাবলো নেরুদার প্রকৃত নাম নেকতালি রিকার্দো রেয়েন্স বাসোয়ালতো; সম্ভবত তিনি চেক কবি জা নেরুদা এবং শিল্পী পাবলো পিকাসোর দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে তাঁর নাম পরিবর্তন করে পাবলো নেরুদা করেছিলেন। পাবলো নেরুদা সারাজীবনে অসংখ্য কাব্যগ্রন্থ রচনা করেছিলেন। তিনি তাঁর কাজের জন্য বিশ্বের দরবারে বহু পুরষ্কারে ভূষিত হন, এর মধ্যে 1971 সালের নোবেল পুরষ্কার ছিল অন্যতম।

pablo neruda

পাবলো নেরুদা তাঁর বর্ণময় জীবনে রাজনৈতিক ভাবে সক্রিয় এবং জনপ্রিয় কমিউনিস্ট নেতা ছিলেন।

অনুবাদক পরিচিতি

বর্তমান পাঠ্য ‘অসুখী একজন’ কবিতাটি কবি ও সাহিত্যিক নবারুণ ভট্টাচার্য দ্বারা অনুবাদিত ‘বিদেশী ফুলে রক্তের ছিটে’ কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত। কবি ও সাহিত্যিক নবারুণ ভট্টাচার্য একজন অন্য ধারার কবি ছিলেন, প্রসঙ্গত তাঁর বাবা ছিলেন বিখ্যাত নাট্য ব্যক্তিত্ব বিজন ভট্টাচার্য এবং তাঁর মা ছিলেন বিখ্যাত সাহিত্যিক মহাশ্বেতা দেবী।


[আরো পড়ুন – আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি]

প্রাসঙ্গিক তথ্য

‘অসুখী একজন’ কবিতাটি কবি নেরুদা রচিত ‘La Desdichada’ (ইংরাজি নাম – The unhappy one) কবিতা থেকে অনুদিত। এই কবিতাটি 1958 সালে প্রকাশিত হয়। পাবলো নেরুদা তার বর্ণময় জীবনে স্পেনের গৃহযুদ্ধ খুব কাছ থেকে দেখেছিলেন এবং বিপ্লবীদের সমর্থনে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন। এছাড়া তার নিজের দেশের আভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে দীর্ঘকাল তাকে দেশ ছাড়ার যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়। তাঁর কবিতায় আমরা তাঁর জীবনের নানান অভিজ্ঞতা ও মতাদর্শের মিশেল লক্ষ্য করি।

subscribe-jump-magazine-india

সারাংশ

‘অসুখী’ একজন কবিতাটি জীবন, বিপ্লব ও যুদ্ধের পটভুমিকায় রচিত হয়েছে। যেকোন মানুষ যখন বিপ্লবের (সামাজিক পট পরিবর্তন) আশায় ঘর ছাড়ে; তখন সে তার বাসস্থান, প্রিয়জন, সমস্ত ভালোলাগা – ভালোবাসা ইত্যাদিকে পিছনে রেখে তার অনিশ্চিত স্বপ্নের দিকে এগিয়ে যায়। হয়তো তার স্বপ্ন সার্থক হয় না, কিন্তু তার আশা- আকাঙ্ক্ষার সমাপ্তি হয় না।

এরপর একদিন যুদ্ধ আসে। যুদ্ধের বীভৎসতা ধ্বংস ডেকে আনে, তার করাল গ্রাসে ধ্বংস হয় জনপদ, বীভৎসতায় মুখ লুকায় ভবিষ্যৎ। তাঁর শৈশব, জীবনের নানান স্মৃতির মুহূর্ত জ্বলে যায় আগুনে। হয়তো সেই সৈন্যটির বা বিপ্লবীটির যুদ্ধের পরে ফেরার আর কোন আশা থাকে না। কিন্তু তার প্রিয়জনদের জন্য অপেক্ষার অবসান হয় না। জগতের স্বাভাবিক নিয়মে সময় এগিয়ে যায় কিন্তু প্রিয়জনদের জন্য সময় থমকে দাড়িয়ে থাকে। কারণ আশার কখনো মৃত্যু হয় না।

প্রসঙ্গত, এখানে কবি ‘সেই মেয়েটি’ রূপক অর্থে ব্যবহার করেছেন। পাঠক তার সুবিধার্থে নানা ভাবে একে ব্যবহার করতে পারেন।


দশম শ্রেণির ভৌতবিজ্ঞান বিষয়ক লেখাগুলি পড়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন।

সরলার্থ

“সে জানতো না আমি আর কখনো ফিরে আসবো না”

মানুষ প্রিয়জনের ক্ষতি চায় না, তাঁরা বিশ্বাস করতে চায় না যে প্রিয়জনেরা তাদের কাছ থেকে দূরে চলে যাবে, আর ফিরবে না। কিন্তু যে যুদ্ধে যায়, সে জানে যে সে আর কখনো ফিরে নাও আসতে পারে।

একটা কুকুর চলে গেল, হেঁটে গেল গির্জার এক নান

একটা সপ্তাহ আর একটা বছর কেটে গেল।

কুকুরে হেঁটে যাওয়া বা গির্জার সন্যাসিনীর হেঁটে যাওয়া একটা  স্বাভাবিক নিত্য নৈমিত্যিক ঘটনা। অর্থাৎ কবি বোঝাতে চেয়েছেন যে তাঁর যাবার পর অনেকটা সময় অতিবাহিত হয়েছে। রাস্তায় ফেলে যাওয়া তাঁর পদচিহ্নগুলো ঘাসের তলায় চাপা পড়ে গেছে।

osukhi-ekjon-2

তারপর যুদ্ধ এল

রক্তের এক আগ্নেয়পাহাড়ের মতো।

আগ্নেয় পাহাড় থেকে যেভাবে লাভাস্রোত নেমে আসে, তেমনভাবে ধ্বংসাত্মক যুদ্ধের ফলে প্রচুর রক্তক্ষয় হয়।

শিশু আর বাড়িরা খুন হলো।

সেই মেয়েটির মৃত্যু হল না।

কবি এখানে ‘শিশু’ কথাটি ভবিষ্যৎ অর্থে আর ‘বাড়ি’ স্থাপত্যকে বোঝাতে ব্যবহার করেছেন। আমরা জানি যুদ্ধের ফলে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়, শহরের পর শহর যুদ্ধের বীভৎসতায় ধ্বংস হয়। বিপুল অর্থনৈতিক ক্ষতি ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনিশ্চয়তার সামনে দাঁড় করায়। কিন্তু আশার মৃত্যু হয় না, প্রিয়জনেরা ভাবে তার প্রিয়জন ফিরে আসবে কারণ ভালোবাসা চিরন্তন।


MMT_Jump


যারা হাজার বছর ধরে

ডুবেছিল ধ্যানে

উল্টে পড়ল মন্দির থেকে টুকরো টুকরো হয়ে

তারা আর স্বপ্ন দেখতে পারলো না।

এখানে কবির দেবতাদের প্রতি শ্লেষাত্মক ভাব ফুটে উঠেছে তিনি বোঝাতে চেয়েছেন, সাধারণ মানুষ দেবতাদের আরাধনা করে কিন্তু যুদ্ধের বীভৎসতায় আরাধ্য দেবতারাও নিরাপদ নন। যারা তথাকথিত ভাবে মানুষদের রক্ষা করেন, যুদ্ধের ভয়াবহতায় তারাই টুকরো টুকরো হয়ে ভেঙ্গে পড়েন। যুদ্ধের কাছে দেবতারাও অসহায়।

osukhi-ekjon-4

রক্তের একটা কালো দাগ।

আর সেই মেয়েটি আমার অপেক্ষায়

আমরা জানি যে রক্ত শুকিয়ে গেলে তার লাল রং পরিবর্তিত হয়ে কালো হয়ে যায়। রক্তের কালো দাগ কবি অনেক সময় অতিবাহিত হয়েছে তা বোঝাতে ব্যবহার করেছেন। ক্ষত শুকিয়ে যায়, জীবন আবার তাঁর পূর্ববর্তী অবস্থায় ফিরে যায়, কিন্তু প্রিয়জনের অপেক্ষায় ভাঁটা পরে না। কারণ আশার মৃত্যু হয় না।


অন্যান্য বিভাগগুলি পড়ুন

দশম শ্রেণি – ভৌতবিজ্ঞান

দশম শ্রেণি – বাংলা

দশম শ্রেণি – গণিত


এই লেখাটি থেকে উপকৃত হলে সবার সাথে শেয়ার করার অনুরোধ রইল।



এছাড়া,পড়াশোনা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ের আলোচনায় সরাসরি অংশগ্রহন করতে যুক্ত হতে পারেন ‘লেখা-পড়া-শোনা’ ফেসবুক গ্রূপে। এই গ্রুপে যুক্ত হতে ক্লিক করুন এখানে।

lekha-pora-shona-facebook-group

Leave a Reply